পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ধরনের দাড়ি দেখা যায়। দাড়ি রাখার সুন্নাতী নিয়ম কি? ইবনে ওমর (রাঃ)-এর আমল অনুসরণ করা যাবে কি?


দাড়ির ব্যাপারে রাসূল (ছাঃ)-এর স্পষ্ট নির্দেশ হ’ল, তোমরা দাড়ি ছেড়ে দাও ও গোঁফ ছাটো এবং মুশরিকদের বিপরীত কর’ (মুত্তাফাক্ব আলাইহ, মিশকাত হা/৪৪২১)। রাসূল (ছাঃ)-এর স্পষ্ট নির্দেশ জানার পর অন্য কারো মত অনুসরণের  কোন সুযোগ নেই (আহযাব ৩৩/৩৬)।

উল্লেখ্য যে, ইবনু ওমর (রাঃ) যখন হজ্জ ও ওমরা করতেন তখন এক মুষ্টির অতিরিক্ত দাড়ি কেটে ফেলতেন (বুখারী হা/৫৮৯২)। এটা তাঁর ব্যক্তিগত আমল এবং হজ্জ ও ওমরার সাথে সম্পৃক্ত। তবে রাসূল (ছাঃ) থেকে কোন সময় কোন অবস্থাতেই দাড়ি খাটো করার কোন ছহীহ দলীল পাওয়া যায় না। অতএব সবাইকে রাসূল (ছাঃ)-এর অনুসরণ করতে হবে। নইলে ক্বিয়ামতের দিন পস্তাতে হবে (ফুরক্বান ২৭ ও ২৮)।

Advertisements

About ইসলামী সাইট

কুরআন ও সহীহ হা‌দিস
This entry was posted in দাড়ি কাটা, দাড়ি কেটে-ছোট রাখা যাবে কি, দাড়ি রাখার সুন্নাতী নিয়ম কি?, দাড়ির এক মু‌ষ্টির অতিরিক্ত অংশ ছেটে ফেলা যায় কি? and tagged . Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s