রাসূল (ছাঃ)-এর যুগে পবিত্র কুরআন যেভাবে সংরক্ষণ বা লিপিবদ্ধ করা হয়েছিল, তাতে কোন হরকত তথা যের, যবর, পেশ ছিল না। বিদায় হজ্জের দিন ইসলাম পরিপূর্ণতা লাভ করল। কিন্তু ওছমান (রাঃ) পরে তা গ্রন্থাকারে লিপিবদ্ধ করেন। আরও পরে হরকত লাগানো হয়। এটা কি পূর্ণাঙ্গ দ্বীনের মধ্যে নতুন সংযোজন নয়?


সর্বপ্রথম আবুবকর (রাঃ) কুরআন একত্রিত করেন। অতঃপর ওছমান (রাঃ)-এর যুগে উক্ত কুরআনের কয়েকটি কপি করে বিভিন্ন এলাকায় পাঠানো হয়। এতে কোন পরিবর্তন ও পরিবর্ধন হয়নি। তিনি কেবল একত্রিত করেছেন মাত্র (বুখারী, মিশকাত হা/২২২০ ও ২২২১)। অনুরূপভাবে তাতে হরকত সংযোজন করতেও কোন পরিবর্তন আনা হয়নি। কারণ হরকত বিহীন কুরআন যেভাবে পড়া হয় হরকত বিশিষ্ট কুরআনও সেভাবে পড়া হয়। বরং এটা আরব ও অনারব সকলের জন্য উপকারী হয়েছে।

This entry was posted in কুরআনে পরে হরকত লাগানো কি পূর্ণাঙ্গ দ্বীনের মধ্যে নতুন সংযোজন নয়?. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.