মানুষকে সূদমুক্ত করযে হাসানাহ দেওয়ার ফযীলত কি?


করযে হাসানাহ প্রদানের গুরুত্ব অত্যধিক। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, ছাদাক্বার নেকী ১০ গুণ। আর করযে হাসানাহর নেকী ১৮ গুণ’ (বায়হাক্বী, ছহীহাহ হা/৩৪০৭)। তিনি বলেন, কোন মুসলমান অপর মুসলমানকে দু’বার কর্য দিলে সে সেই পরিমাণ মাল একবার ছাদাক্বা করার সমান ছওয়াব পায়’ (ইবনু মাজাহ হা/২৪৩০; ছহীহ আত-তারগীব হা/৯০১)। তিনি আরও বলেন, ‘যে ব্যক্তি এই কামনা করে যে, আল্লাহ তা‘আলা তাকে ক্বিয়ামত দিবসের দুঃখ-কষ্ট হ’তে মুক্তি দিবেন, সে যেন অক্ষম ঋণগ্রস্ত ব্যক্তির সহজ ব্যবস্থা করে অথবা ঋণ মওকূফ করে দেয়’ (মুসলিম হা/১৫৬৩; মিশকাত হা/২৯০২)। মনে রাখা আবশ্যক যে, এসব ঋণদান কার্যক্রম সম্পূর্ণরূপে সূদমুক্ত হ’তে হবে। নইলে নেকী অর্জনের বদলে আমল বরবাদ হয়ে যাবে।

Advertisements
This entry was posted in সূদমুক্ত করযে হাসানাহ দেওয়ার ফযীলত কি? and tagged . Bookmark the permalink.