বিবাহের ক্ষেত্রে বর্তমানে বৃহৎ আকারে ওয়ালীমা করার যে সামাজিক রীতি প্রচলিত রয়েছে, এরূপ ব্যয়বহুল অনুষ্ঠান কি অপচয়ের অন্তর্ভুক্ত হবে?


শরী‘আতে ওয়ালীমা করার জন্য জোর তাকীদ এসেছে। তাই সামর্থ থাকলে এরূপ করায় বাধা নেই। আল্লাহ তা‘আলা বান্দার উপর তাঁর প্রদত্ত নে‘মতের নিদর্শন দেখতে ভালোবাসেন (আবুদাউদ হা/;৪০৬৩; মিশকাত হা/৪৩৫২; ছহীহুল জামেহা/২৫৪)। রাসূল (ছাঃ) একটি বকরী দিয়ে হ’লেও ওয়ালীমা করার নির্দেশ দিয়েছেন (বুখারী হা/২০৪৮; মুসলিম হা/১৪২৭; মিশকাত হা/৩২১০)। তিনি যয়নব (রাঃ)-কে বিবাহের পর লোকদেরকে গোশত-রুটি খাইয়েছিলেন(বুখারী হা/৪৭৯৪; মুসলিম হা/১৪২৮; মিশকাত হা/৩২১২)। ওয়ালীমায় গরীবদের বঞ্চিত করা যাবে না। রাসূল (ছাঃ) বলেন, নিকৃষ্ট খানা হ’ল ওয়ালীমার ঐ খানা, যাতে কেবল ধনীদের দাওয়াত দেওয়া হয় এবং গরীবদের বাদ দেওয়া হয়’(বুখারী হা/৫১৭৭; মুসলিম হা/১৪৩২; মিশকাত হা/৩২১৮)। তবে গান-বাজনা, অহেতুক আলোকসজ্জা ইত্যাদি অপচয় থেকে অবশ্যই বিরত থাকতে হবে। কেননা আল্লাহ বলেছেন, ‘অপচয়কারীরা শয়তানের ভাই’ (ইসরা  ১৭/২৭)

Advertisements
This entry was posted in অনুষ্ঠান বিবাহের ক্ষেত্রে অপচয়ের অন্তর্ভুক্ত হবে কি?, বিবাহে ব্যয়বহুল অনুষ্ঠান কি অপচয়ের অন্তর্ভুক্ত হবে? and tagged , . Bookmark the permalink.