কেউ যদি কুরআন ও সুন্নাহ মেনে চলে তার জন্য কোন জামা‘আত বা সংগঠনের অন্তুর্ভুক্ত থাকা যরূরী কি? বিশেষতঃ যারা আমরা অমুসলিম দেশে বসবাস করি?


কুরআন-সুন্নাহর নির্দেশ মানতে গেলে প্রত্যেক মুসলিমকে জামা‘আতবদ্ধ থাকতে হবে, যেখানেই তিনি বসবাস করুন না কেন। যাকে তিনি ফিরক্বা নাজিয়াহর আমীর হিসাবে মনে করেন, তার প্রতি আল্লাহর নামে আনুগত্যের অঙ্গীকার করবেন। অতঃপর তাঁর দেওয়া কুরআন ও ছহীহ হাদীছ ভিত্তিক আদেশ-নিষেধ সমূহ মেনে চলবেন। এজন্য ভাষা-বর্ণ, অঞ্চল বা দেশ কোন শর্ত নয়। কেবল আক্বীদা ও আমল শর্ত। আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ তাদেরকে ভালবাসেন, যারা তাঁর পথে লড়াই করে সারিবদ্ধভাবে সীসাঢালা প্রাচীরের ন্যায়’ (ছফ ৬১/৪)। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, ‘তোমাদের উপর জামা‘আতবদ্ধ জীবন অপরিহার্য এবং বিচ্ছিন্ন জীবন পরিত্যাজ্য। নিশ্চয়ই শয়তান একাকী ব্যক্তির সঙ্গে থাকে এবং দু’জন থেকে দূরে থাকে। আর যে ব্যক্তি জান্নাতের মধ্যস্থলে থাকতে চায়, সে যেন জামা‘আতকে অপরিহার্য করে নেয়’ (তিরমিযী হা/২১৬৫, সনদ ছহীহ)। তিনি আরও বলেন, জামা‘আবদ্ধ জীবন হ’ল রহমত এবং বিচ্ছিন্ন জীবন হ’ল আযাব (আহমাদ, ছহীহাহ হা/৬৬৭; ছহীহুল জামেহা/৩১০৯)। অন্যত্র তিনি বলেন, জামা‘আতের উপরে আল্লাহর হাত থাকে’ (নাসাঈ হা/৪০২০; ছহীহুল জামেহা/৩৬২১)

Advertisements
This entry was posted in জামা‘আত বা সংগঠনের অন্তুর্ভুক্ত থাকা যরূরী কি?. Bookmark the permalink.