আমি প্রবাসে থাকি। দেশে থাকা পিতা-মাতা আমার পুরো উপার্জনই ভোগ করতে চান। আমার স্ত্রী-সন্তানদের জন্য খরচ করতে অনীহা পোষণ করেন। এক্ষণে আমার করণীয় কি?


আল্লাহ তা‘আলা প্রত্যেকের জন্য অধিকার নির্ধারণ করে দিয়েছেন। সন্তানের উপার্জন থেকে প্রয়োজন মত পাওয়ার অধিকার যেমন পিতা-মাতার রয়েছে, তেমনি স্ত্রী-সন্তানেরও রয়েছে। রাসূল (ছাঃ) বলেন, ‘আল্লাহ প্রত্যেক হকদারের জন্য তার হক নির্দিষ্ট করে দিয়েছেন’ (আবুদাঊদ হা/২৮৭০; মিশকাত হা/৩০৭৩)। এক ব্যক্তি নবী করীম (ছাঃ)-এর নিকট এসে বলল, আমার সম্পদ আছে। আর আমার পিতা সে সম্পদের মুখাপেক্ষী। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বললেন, ‘তুমি ও তোমার সম্পদ তোমার পিতার। জেনে রেখ, তোমাদের সন্তানরা তোমাদের উত্তম উপার্জন। অতএব তোমরা সন্তানদের উপার্জন খাও’ (আবুদাঊদ, মিশকাত হা/৩৩৫৪, সনদ ছহীহ)। অন্য বর্ণনায় এসেছে তিনি বলেন,  ‘সন্তানদের সম্পদ অতটুকু তোমাদের, যতটুকু তোমাদের প্রয়োজন’ (হাকেম, সিলসিলা ছহীহাহ হা/২৫৬৪)

মু‘আবিয়া (রাঃ) বলেন, হে আল্লাহর রাসূল (ছাঃ)! আমাদের উপর স্ত্রীদের হক কি? তিনি বললেন, ‘যখন তুমি খাবে, তখন তোমার স্ত্রীকে খাওয়াবে। যখন কাপড় ক্রয় করবে, তখন তার জন্যও ক্রয় করবে (আবুদাঊদ হা/২১৪২; মিশকাত হা/৩২৫৯)। রাসূল (ছাঃ) বলেন, ‘আর তুমি সাধ্যমত তোমার পরিবার-পরিজনের জন্য খরচ কর’ (আহমাদ হা/২২২১২৮; মিশকাত হা/৬১)। তিনি বলেন, ‘তোমার পরিবারেরও তোমার প্রতি অধিকার রয়েছে। অতএব প্রত্যেক হক্বদারকে তার হক্ব প্রদান কর’ (বুখারী হা/১৯৬৮; মিশকাত হা/২০৬১)। অতএব পূর্ণ আন্তরিকতা নিয়ে এ ব্যাপারে শরী‘আতের নির্দেশনা পিতা-মাতাকে বুঝাতে হবে। একান্ত না বুঝলে তাদেরকে প্রয়োজনীয় অর্থ প্রদান করে বাকী অর্থ নিজ দায়িত্বে স্ত্রী-সন্তানের জন্য ব্যয় করবে।

Advertisements
This entry was posted in পিতা-মাতা স্ত্রী-সন্তানদের জন্য খরচ করতে অনীহা পোষণ করলে করণীয় কি? and tagged , . Bookmark the permalink.