বহুল প্রচারিত একটি ইসলামী পত্রিকার প্রশ্নোত্তর কলামে বলা হয়েছে যে, কবরের সামনে দাঁড়িয়ে সূরা ইয়াসীন ও ফাতেহাসহ অন্যান্য সূরা পাঠ করা যাবে। এতে কবরের আযাব মাফ হবে এবং মৃত ব্যক্তি উক্ত তেলাওয়াতের নেকী পাবে। এ বক্তব্যের সত্যতা জানতে চাই।


উক্ত বক্তব্য সঠিক নয়। এ মর্মে বর্ণিত হাদীছসমূহ যঈফ (সিলসিলা যঈফাহ হা/১২৪৬, ৪১৪০)। সেখানে কুরআন তেলাওয়াতের নেকী মৃত ব্যক্তি পাবেন না। তিরমিযীর ভাষ্যকার আব্দুর রহমান মুবারকপুরী (রহঃ) বলেন, ইবাদতে বদনী, যেমন কুরআন তেলাওয়াত, ছালাত, ছিয়াম ইত্যাদির ছওয়াব মাইয়েত পাবেন মর্মে কোন ছহীহ ও স্পষ্ট হাদীছ প্রমাণিত হয়নি। এরূপ দৈহিক ইবাদতের ছওয়াব তারা পাবেন মর্মে যেসব হাদীছ বলা হয়ে থাকে, তা সবই যঈফ’। (বিস্তারিত দ্রঃ মাওলানা আহমাদ আলী, কোরআন ও কলেমাখানী বই ১০, ৫৬ পৃ.)

Advertisements
This entry was posted in কবরের সামনে দাঁড়িয়ে সূরা ইয়াসীন ও ফাতেহাসহ অন্যান্য সূরা পাঠ করা যাবে কী? and tagged , . Bookmark the permalink.