একটি মেয়ে একটি ছেলের সাথে পালিয়ে বিবাহ করে সংসার করছে। পিতা মেয়েকে ত্যাজ্য করেছে। উক্ত বিবাহ ও ত্যাজ্যকরণ সঠিক হয়েছে কি? এক্ষণে পিতার করণীয় সম্পর্কে শরী‘আতের নির্দেশনা কি?


বৈধ অভিভাবকের অনুমতি ও দু’জন ন্যায়বান সাক্ষী ছাড়া সম্পন্ন হওয়ায় উক্ত বিবাহ বাতিল (ছহীহ ইবনু হিববান হা/৪০৭৫; আবুদাঊদ হা/২০৮৩ প্রভৃতি; মিশকাত হা/৩১৩১)। তবে এজন্য সন্তানকে ত্যাজ্য করার কোন বিধান শরী‘আতে নেই। কোন পিতা এরূপ করে থাকলে তা গ্রহণযোগ্য হবে না। এরূপ করলে পিতা-মাতা রক্ত সম্পর্ক ছিন্নকারী কবীরা গোনাহগার হিসাবে গণ্য হবেন। রাসূল (ছাঃ) বলেছেন, ‘রক্ত সম্পর্ক ছিন্নকারী ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করবে না’ (বুখারী হা/৫৯৮৪; মুসলিম হা/২৫৫৬; মিশকাত হা/৪৯২২)। এক্ষণে এরূপ ক্ষেত্রে যদি উভয়ের মাঝে দ্বীনী ও চারিত্রিক সমতা থাকে, তাহ’লে স্বেচ্ছায় অনুমতি দিয়ে উভয়কে তওবা করিয়ে নতুনভাবে বিবাহের ব্যবস্থা করতে হবে। তাহ’লে ব্যভিচারের কঠিন গুনাহ থেকে উভয়েই মুক্তি পাবে। তবে তা না থাকলে সন্তানের মাঝে ঈমানী চেতনা সৃষ্টি করে তাকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করতে হবে।

Advertisements
This entry was posted in বিবাহ পালিয়ে করার কারনে সন্তানকে তাজ্য করা যাবে কি? and tagged . Bookmark the permalink.