আমি শহুরে পরিবেশে বড় হয়েছি। আমার স্বামী আমাকে শহরে রাখতে চায়। কিন্তু শ্বশুর-শ্বাশুড়ী আমাকে গ্রামে রাখার পক্ষে। স্বামী তার পিতা-মাতার নির্দেশ অমান্য করে আমাকে শহরে রেখেছে। এক্ষণে আমার স্বামী বা আমি কি গোনাহগার হব?


স্ত্রীর জন্য যরূরী হ’ল স্বামীর আনুগত্য করা। স্বামী স্ত্রীকে যেখানে রাখবে সে সেখানেই অবস্থান করবে। স্বামী মাতা-পিতার খিদমত কীভাবে করবে সেটি স্বামীর দায়িত্ব। এক্ষেত্রে স্বামীর সুযোগ থাকলে এবং স্ত্রীর যথাযথ হক আদায় করতে পারলে স্ত্রীকে গ্রামের বাড়িতে রাখতে পারে। কারণ জনৈক ছাহাবী মাতা-পিতার আদেশে স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার ব্যাপারে আবুদ্দারদা (রাঃ)-কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, আমি তোমাকে স্ত্রী ছাড়তেও বলব না, রাখতেও বলব না। আমি কেবল অতটুকু বলব, যতটুকু আমি রাসূল (ছাঃ)-এর নিকট থেকে শুনেছি। তিনি বলেছেন, ‘পিতা হ’লেন জান্নাতের মধ্যম দরজা। এক্ষণে তুমি তা রেখে দিতে পার অথবা বিনষ্ট করতে পার’ (তিরমিযী হা/১৯০০; মিশকাত হা/৪৯২৮; ছহীহাহ হা/৯১৪)। তবে পিতা-মাতার এরূপ নির্দেশনায় যদি কোন শরী‘আত বিরোধী ইচ্ছা যুক্ত থাকে, সেক্ষেত্রে স্বামীর জন্য স্ত্রীকে নিয়ে পৃথক থাকাই উত্তম হবে।

This entry was posted in শ্বশুর-শ্বাশুড়ী কথা না শুনলে গোনাহগার হব কি? and tagged . Bookmark the permalink.