আমাদের সরকারী অফিসে অনেক কর্মকর্তা আছেন, যারা দ্বীনী কাজের অজুহাতে মাসের অর্ধেক দিন অফিস ফাঁকি দেন। যদিও তারা ধর্মীয় কার্যাবলী সুচারুরূপে করেন। কিছু বলা হ’লে তারা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি রয়েছে বলে জানান। অথচ সরকারী চাকুরী বিধি সবার উপর সমভাবে প্রযোজ্য। এরূপ অন্যায়ের জন্য তাকে গুনাহগার হ’তে হবে কি?


সরকারী-বেসরকারী যেকোন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ব্যক্তি অফিস ফাঁকি দিলে গুনাহগার হবে। কারণ চাকুরীরত ব্যক্তি নিয়োগকারীর সাথে নির্দিষ্ট শর্তাধীনে চুক্তিবদ্ধ হয়ে কর্মরত হয়েছেন। যা একটি আমানত। এর খেয়ানত করলে কাবীরা গুনাহ হবে। আল্লাহ বলেন, ‘হে মুমিনগণ! তোমরা (অবাধ্যতার মাধ্যমে) আল্লাহ ও রাসূলের সাথে খেয়ানত করো না এবং (এর অনিষ্টকারিতা) জেনে-শুনে তোমাদের পরস্পরের আমানত সমূহে খেয়ানত করো না’ (আনফাল /২৭)। রাসূল (ছাঃ) বলেন, যার আমানতদারী নেই তার দ্বীন নেই (আহমাদ হা/১২৪০৬; মিশকাত হা/৩৫; ছহীহুল জামেহা/৭১৭৯)। তিনি বলেন, ‘সাবধান! তোমরা প্রত্যেকেই দায়িত্বশীল। তোমরা প্রত্যেকেই ক্বিয়ামতের দিন স্ব স্ব দায়িত্ব সম্পর্কে জিজ্ঞাসিত হবে’ (মুত্তাফাক্বআলাইহ, মিশকাত হা/৩৬৮৫) তবে নিজ দায়িত্ব পালনের পর ইনছাফ ও দায়বদ্ধতা বজায় রেখে পূর্ণ ন্যায়পরায়ণতার সাথে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে প্রয়োজনীয় ছুটি ভোগ করা যাবে (বিস্তারিত দ্রঃ শায়খ বিন বায, মাজমূফাতাওয়া /৩৯, ১৯/৩৫৩৩৫৪)

Advertisements
This entry was posted in দ্বীনী কাজের অজুহাতে মাসের অর্ধেক দিন অফিস ফাঁকি দিলে গুনাহগার হ’তে হবে কি? and tagged . Bookmark the permalink.