সুন্নাত বা নফল ছালাতে বাংলায় দো‘আ করা যাবে কি? হারামের ইমামদের দেখা যায় তাঁরা রামাযান মাসে বিতর ছালাতে ইচ্ছামত লম্বা দো‘আ আরবী ভাষায় পড়েন। এক্ষণে আরবীতে পড়লে জায়েয, কিন্তু বাংলায় পড়লে নাজায়েয হবে কি?


ছালাতের ভাষা আরবী। তাই দো‘আও আরবীতেই পাঠ করতে হবে। রাসূল (ছাঃ) বলেন, ‘আমাদের এ ছালাতে মানুষের কথাবার্তা সিদ্ধ নয়। এটা হ’ল তাসবীহ, তাকবীর এবং তেলাওয়াতে কুরআন’ (মুসলিম হা/৫৩৭; মিশকাত হা/৯৭৮)। ছালাতের মধ্যে অন্য ভাষায় দো‘আ করা যায় মর্মে কোন দলীল বর্ণিত হয়নি। এর মধ্যে বিশ্ব মুসলিমের ইবাদতের ক্ষেত্রে ঐক্যের সূক্ষ্ম তাৎপর্য নিহিত রয়েছে। যেমন আযান, সালাম ও দো‘আ সমূহ পাঠ ইত্যাদি। ইমাম ইবনু তায়মিয়াহ (রহঃ) বলেন, মানুষের উচিত কুরআন ও হাদীছে বর্ণিত শারঈ দো‘আসমূহই পাঠ করা (মাজমূফাতাওয়া /৩৪৬)

এমতাবস্থায় শেষ বৈঠকে সালাম ফিরানোর পূর্বে অর্থ বুঝে ‘রববানা আ-তেনা ফিদ্দুনিয়া হাসানাতাওঁ ওয়া ফিল আ-খিরাতে হাসানাতাওঁ ওয়া ক্বিনা আযা-বান্নার’ পাঠ করবে। আর কুনূতে নাযেলায় পরিস্থিতির চাহিদামত যেকোন দো‘আ আরবীতে পাঠ করা যেতে পারে। এই কুনূতের জন্য কোন নির্দিষ্ট দো‘আ নেই (মিরআত /৩০২)

Advertisements
This entry was posted in বিতর ছালাতে ইচ্ছামত লম্বা দো‘আ করা যাবে কি?, সুন্নাত বা নফল ছালাতে বাংলায় দো‘আ করা যাবে কি? and tagged . Bookmark the permalink.