রামাযান মাসে কোন ব্যক্তি যদি স্ত্রী মিলনরত অবস্থায় ফজরের আযান শুনতে পায় তাহলে কি করবে?


এমতাবস্থায় যদি সে সঙ্গে সঙ্গে এথেকে বিরত হয়, তাহ’লে তার ছওম অক্ষুণ্ণ থাকবে। কিন্তু যদি সে ঐ অবস্থাতেই থাকে, তাহ’লে তার ছওম বাতিল হবে এবং তার উপর ক্বাযা ও কাফফারা ওয়াজিব হবে (নববী, আল-মাজমূ‘ ৬/৩০৯; ইবনু কুদামা, মুগনী ৩/১৩৯)। তা হ’ল, (১) একজন দাস মুক্ত করবে অথবা (২) দু’মাস একটানা ছিয়াম পালন করবে অথবা (৩) ষাটজন মিসকীনকে মধ্যম মানের খাদ্য প্রদান করবে (বুখারী হা/১৯৩৬; মুসলিম হা/১১১১; মিশকাত হা/২০০৪ ‘ছওম’ অধ্যায়)। নববী বলেন, ৬০ জন মিসকীনকে ৬০ মুদ খাদ্যশস্য প্রদান করবে। যার পরিমাণ ১৫ ছা‘ (নববী, শরহ মুসলিম হা/১১১২)। অর্থাৎ মাদানী ছা‘ অনুযায়ী সাড়ে ৩৭ কেজি চাউল।

This entry was posted in রামাযান মাসে স্ত্রী মিলনরত অবস্থায় ফজরের আযান শুনতে পেলে করণীয় কি? and tagged , . Bookmark the permalink.