কুকুর আল্লাহর সৃষ্টি। অথচ তা বাড়িতে প্রতিপালন করা নিষেধ, এমনকি প্রতিদিনের বিপরীতে এক ক্বীরাত্ব বা দু’ক্বীরাত নেকী কমে যায়। এর কারণ কি?


শূকরের মত কুকুরও সত্ত্বাগতভাবে নাপাক। সেকারণে কুকুর পালনে নিষেধ করা হয়েছে (মুসলিম হা/১৫৭৪, ২১০৬)। তাছাড়া কুকুরের লালা ও মলমূত্র মুছল্লীর কাপড়ে লাগলে কাপড় অপবিত্র হয়ে যায় (তায়সীরুল আল্লাম ২/২০৯)। এদের লালায় ভয়ংকর জীবাণু থাকে, যার স্পর্শকৃত পাত্র সাতবার ধৌত করার বিধান রয়েছে (মুসলিম হা/২৭৯, ২৮০, উছায়মীন, শরহ রিয়াযুছ ছালেহীন ৬/৪২৯-৪৩০)। এমনকি এই প্রাণী বাড়িতে থাকলে সে বাড়ীতে রহমতের ফেরেশতারা প্রবেশ করে না (বুখারী হা/৩৩২২)। তবে সব কুকুর পালন নিষিদ্ধ নয়। যেমন শিকারের কাজে ব্যবহৃত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কুকুর এবং পাহারায় নিয়োজিত কুকুর পালন করা জায়েয (মায়েদা ৫/৪; বুখারী হা/২৩২২; মুসলিম হা/১৫৭৪)। তবে এমন কুকুরকেও গৃহাভ্যন্তরে প্রবেশ করতে দেয়া যাবে না (বুখারী হা/৩৩২২)

This entry was posted in কুকুরকে বাড়ীতে পাললে নেকী কমে যায় কেনো? and tagged , , . Bookmark the permalink.