গ্রামে গেলে বিভিন্ন স্থানে পড়ে থাকা ব্যক্তি মালিকানাধীন ফল আমরা খেয়ে থাকি। এটা কতটুকু জায়েয হবে?


খোলা বাগানে বৃক্ষের নীচে পড়ে থাকা ফল কুড়িয়ে খাওয়া জায়েয। আর যদি বাগান প্রাচীর দিয়ে ঘেরা থাকে তাহ’লে মালিক বা তার প্রতিনিধিকে ডেকে অনুমতি নিবে। মালিক না থাকলে ফল কুড়িয়ে বা পেড়ে খাওয়া যাবে। তবে ফল বেঁধে বাড়ি নেওয়া যাবে না। রাসূল (ছাঃ) বলেন, তোমাদের কেউ কোন বাগানের কাছ দিয়ে গেলে সে ইচ্ছা করলে ফল খাবে, কিন্তু কাপড়ে বেঁধে নিয়ে যাবে না (ইবনু মাজাহ হা/২৩০১, তিরমিযী হা/১২৮৭; মিশকাত হা/ ২৯৫৪; ইরওয়া হা/২৫১৭)। তিনি আরো বলেন, ‘তুমি গবাদিপশুর পালের নিকট পৌঁছে তার রাখালকে উচ্চৈঃস্বরে তিনবার ডাক দিবে। সে তোমার ডাকে সাড়া দিলে তো ভালো, অন্যথায় তুমি তার দুধ পান কর, ক্ষতিসাধন না করে। আর তুমি কোন ফলের বাগানে পৌঁছে বাগানের মালিককে তিনবার ডাক দিবে। সে তোমার ডাকে সাড়া দিলে তো ভালো, অন্যথায় তুমি ক্ষতি না করে তা থেকে পেড়ে খাও (ইবনু মাজাহ হা/২৩০০; ছহীহুল জামে‘ হা/২৭৪)। উল্লেখ্য যে, কোন এলাকায় গাছের নীচে পড়ে থাকা ফল বাড়ি নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে যদি সাধারণ নিয়ম থাকে তাহ’লে তা বেঁধে নিয়ে যাওয়াতে দোষ নেই (ইবনু কুদামা, মুগনী ৯/৪১৭; নববী, আল মাজমূ ৯/৫৪; উছায়মীন, আশ শারহুল মুমতে‘ ৬/৩৩৯)

গোবারা বংশের জনৈক ছাহাবী ক্ষুধার্ত অবস্থায় মদীনার এক বাগানে গিয়ে ফল ছিঁড়ে কিছু খান এবং কিছু কাপড়ে বেঁধে নেন। এ সময় বাগানের মালিক এসে তাকে প্রহার করে এবং তার কাপড় কেড়ে নেয়। অতঃপর তিনি বিষয়টি রাসূল (ছাঃ) কে অবহিত করলে তিনি লোকটিকে বললেন, তুমি তাকে খেতে দাওনি যখন সে ক্ষুধার্ত। তুমি তাকে শিখিয়ে দাওনি যখন সে অজ্ঞ। তিনি তাকে কাপড় ফেরত দিতে বললেন এবং এক ওয়াসাক্ব (৬০ ছা‘) অথবা আধা ওয়াসাক্ব খাদ্য প্রদানের আদেশ দিলেন (ইবনু মাজাহ হা/২২৯৮)

This entry was posted in বিভিন্ন স্থানে পড়ে থাকা ব্যক্তি মালিকানাধীন ফল খাওয়া জায়েয হবে কি? and tagged , , . Bookmark the permalink.