আমি মানত করেছিলাম এক মাসের মধ্যে সুস্থ হ’লে প্রতি সোম ও বৃহস্পতিবার ছিয়াম পালন করব, এক মাসের মধ্যে কুরআন খতম করব, ইয়াতীমখানায় একটি ছাগল দান করব ও সেখানে যা দান করতাম তার দ্বিগুণ দান করব। এক্ষণে ছিয়াম পালন ও ছাগল দান করতে পারলেও কুরআন খতম করতে পারিনি এবং দ্বিগুণ দান করার মত সামর্থ্যও নেই। এক্ষণে আমার জন্য করণীয় কি?


কুরআনের বাকী অংশটুকু তেলাওয়াত করে কুরআন খতম করবে। কারণ আল্লাহর আনুগত্যের কাজে ওযরবশত দেরী হ’লে দোষ নেই’ (ফাতাওয়া লাজনা দায়েমাহ ২৩/৩৪১; ফাতাওয়া ইসলামিয়াহ ৩)। আর দানের ক্ষেত্রে দু’টি পদ্ধতি গ্রহণীয়। (১) যখন সক্ষম হবে তখন এক সাথে বকেয়াসহ দান করবে। (২) মানত ভঙ্গ করে কাফফারা দিবে। আর মানতের কাফফারা কসমের কাফফারার ন্যায়। কসমের কাফফারা হ’ল ১০ জন মিসকীনকে মধ্যম ধরনের খাদ্য বা পোষাক প্রদান করা অথবা একটি গোলাম আযাদ করা। অথবা তিনটি ছিয়াম পালন করা’ (মায়েদাহ ৫/৮৯)

This entry was posted in মানত, মানত উ‌দ্দেশ্য পূরন না হ‌লেও পূরন কর‌তে হ‌বে কি?, মানত করার পর মানতে না পারলে করণীয় কি?, মানত করার হুকুম কি?, মানত যদি নাজায়েজ হয় তাহলে আমার জন্য করণীয় কি? and tagged . Bookmark the permalink.