হাদীছে ছালাতুয যুহার দুই রাক‘আত ছালাতকে ছাদাক্বা বলা হয়েছে। তাহ’লে উক্ত দুই রাক‘আত ছালাত আদায় করে কারো নামে ছাদাক্বা করা যাবে কি?


আর্থিক ছাদাক্বা ব্যতীত কোন ইবাদত কারো নামে ছাদাক্বা করা যায় না। বর্ণিত হাদীছটির ব্যাখ্যা হ’ল- এই ইবাদতটি পালনকারী ব্যক্তির ৩৬০টি হাড়ের পক্ষ থেকে ছাদাক্বা হবে। অন্যের পক্ষ থেকে নয় (উছায়মীন, শরহ রিয়াযুছ ছালেহীন ২/১৫৫)। যেমন রাসূল (ছাঃ) বলেন, ‘তোমাদের কেউ যখন ভোরে উঠে, তখন তার প্রতিটি জোড়ার উপর একটি ছাদাক্বা রয়েছে। প্রতি ‘সুবহানাল্লাহ্’ ছাদাক্বা, প্রতি ‘আলহামদুলিল্লাহ’ ছাদাক্বা, প্রতি ‘লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ ছাদাক্বা, প্রতি ‘আল্লাহু আকবার’ ছাদাক্বা, ‘আমর বিল মা‘রূফ’ (সৎকাজের আদেশ) ছাদাক্বা, ‘নাহি ‘আনিল মুনকার’ (অসৎকাজ থেকে নিষেধ) ছাদাক্বা। অবশ্য চাশতের সময় দু’রাক‘আত ছালাত আদায় করা এ সবের পক্ষ থেকে যথেষ্ট’ (মুসলিম হা/৭২০; মিশকাত হা/১৩১১)। এমনকি বাহনের পিছনে কাউকে আরোহণ করানোটাও ছাদাকবা। অন্য বর্ণনায় এসেছে, ‘দু’জন লোকের মধ্যে সুবিচার করাও ছাদাক্বা। কাউকে সাহায্য করে সওয়ারীতে আরোহণ করিয়ে দেওয়া বা তার উপরে তার মালপত্র তুলে দেওয়াও ছাদাক্বা। ভাল কথাও ছাদাক্বা। ছালাত আদায়ের উদ্দেশ্যে পথ চলায় প্রতিটি কদমেও ছাদাক্বা। রাস্তা থেকে কষ্টদায়ক বস্ত্ত অপসারণ করাও ছাদাক্বা’ (বুখারী হা/২৯৮৯; মুসলিম হা/১০০৯; মিশকাত হা/১৮৯৬)

This entry was posted in ছাদাক্বা ছালাত আদায় করে করা যাবে কি? and tagged . Bookmark the permalink.