Category Archives: তাবলীগী জামাআ‌তে যাওয়া যা‌বে কী?

আমাদের মসজিদের কিছু মুছল্লী মাঝে মাঝে ছালাতের পর বাড়ি ও দোকানে গিয়ে গিয়ে ছহীহ দ্বীনের দাওয়াত প্রদান করেন। যা তাবলীগ জামা‘আতে ভাইদের আমলের সাথে মিলে যায়। এক্ষণে এটি জায়েয হবে কি?


বিশুদ্ধ আক্বীদা ও আমলের দাওয়াত মানুষের দুয়ারে পৌঁছে দেওয়ায় জন্য এরূপ পন্থা অবলম্বন করায় শরী‘আতে কোন বাধা নেই। তা তাবলীগ জামা‘আতের সাথে বা অন্য কোন বাতিল দলের ভাল কাজের সাথে মিলে গেলেও তাতে কোন অসুবিধা নেই। তবে দাঈকে স্থান-কাল-পাত্র বুঝে … Continue reading

Posted in তাবলীগ করা যা‌বে কী?, তাবলীগী জামাআ‌তে যাওয়া যা‌বে কী?, বাড়ি ও দোকানে গিয়ে গিয়ে ছহীহ দ্বীনের দাওয়াত প্রদান করা যা‌বে কি?

আমাদের এলাকায় তাবলীগ জামাতের মহিলারা একটি স্থানকে নির্দিষ্ট করে সেখানে মহিলাদের তা‘লীম দেয় এবং বলে যে, এই অনুষ্ঠান জান্নাতের বাগান স্বরূপ। ফেরেশতারা এখানে নূরের পাখা বিছিয়ে রেখেছে এবং তারা আপনাদের ছবি তুলে নিয়েছে। এ সকল বৈঠকে যাওয়া যাবে কি?


তাবলীগ জামা‘আত একটি বিদ‘আতী দল। এ দলের সাথে বের হওয়া এবং তাদের কোন অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করা যাবে না। তাদেরকে প্রশ্রয়ও দেয়া যাবে না। কারণ বিদ‘আতীদেরকে প্রশ্রয় দিতে রাসূল (ছাঃ) কঠোরভাবে নিষেধ করেছেন (বুখারী হা/৩১৮০)। তারা বানোয়াট কিচ্ছা-কাহিনী এবং বানোয়াট … Continue reading

Posted in তাবলীগী জামাআ‌তে যাওয়া যা‌বে কী? | Leave a comment

জনৈক ব্যক্তি বলেন, ছাহাবীগণ দাওয়াতী কাজের জন্য দীর্ঘ সফরে বের হতেন। আর এখান থেকেই ইলিয়াসী তাবলীগের নিয়ম-পদ্ধতি গ্রহণ করা হয়েছে। উক্ত বক্তব্য কি সঠিক?


রাসূল (ছাঃ) ছাহাবীগণকে সঠিক ইসলামী তা‘লীম দিয়ে ইসলাম প্রচারের জন্য প্রেরণ করতেন। পক্ষান্তরে প্রচলিত তাবলীগে স্বপ্নে পাওয়া মিথ্যা কল্প-কাহিনী দিয়ে লোকদের প্রেরণ করা হয়। রাসূল (ছাঃ) ও তাঁর ছাহাবীগণের দাওয়াতে তিন দিন বা চল্লিশ দিনকে ফরয করে নেয়ার কোন বানোয়াট … Continue reading

Posted in তাবলীগী জামাআ‌তে যাওয়া যা‌বে কী?, তাবলীগের নিয়ম-পদ্ধতি ছাহাবীদের নিকট থেকে গ্রহণ করা হয়েছে কি? | Leave a comment