Tag Archives: কসম

কোন বিষয়ের সমাধানকল্পে গুরুত্ব বুঝানোর জন্য মসজিদের ভিতর কসম করা যাবে কি?


মসজিদে বসে কসম করা যাবে। এ ব্যাপারে ইমাম মালেক (রহঃ)-কে জিজ্ঞেস করা হ’লে তিনি বলেন, মসজিদে আল্লাহর নামে কসম করতে পারে (আল-মুদউওয়ানাহ ৪/৫)। ইমাম শাফেঈ (রহঃ)-কে জিজ্ঞেস করা হ’লে তিনিও গুরুত্বের জন্য মসজিদে কসম করার পক্ষে মত দেন’ (কিতাবুল উম্ম ৭/৩৬)।

Posted in কসম মসজিদের ভিতর করা যাবে কি?, মসজিদের ভিতর কসম করা যাবে কি? | Tagged , | Leave a comment

‘তুমি যদি ছেলেটার সাথে আরেকবার কথা বল তাহ’লে তালাক’। এক্ষণে যদি স্ত্রী সেই ছেলের সাথে কথা বলে তাহ’লে কি তিন তালাক হয়ে যাবে নাকি এক তালাক হবে?


উক্ত ছেলের সাথে স্ত্রী কথা বললে এক তালাক গণ্য হবে। কারণ একই বৈঠকে তিন শব্দ উল্লেখ করলেও এক তালাকই হয় (মুসলিম হা/১৪৭২; আহমাদ হা/২৮৭৭; ইবনু তায়মিয়াহ, মাজমূ‘ ফাতাওয়া ৩৩/৪৬)।

Posted in তালাক হওয়ার কসম করলে একবারে কই তালাক হবে? | Tagged , | Leave a comment

কুরআন ছুঁয়ে কসম করা শিরক বলে গণ্য হবে কি?


আল্লাহর নাম বা গুণাবলী ছাড়া অন্য কারু নামে কসম করা শিরক। রাসূল (ছাঃ) বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহ ছাড়া অন্যের নামে কসম করল, সে কুফরী করল অথবা শিরক করল’ (তিরমিযী হা/১৫৩৫;  মিশকাত হা/৩৪১৯; ছহীহাহ হা/২০৪২)। তিনি আরও বলেন, ‘যে কসম খেতে চায়, … Continue reading

Posted in কুরআন ছুঁয়ে কসম করা শিরক বলে গণ্য হবে কি? | Tagged , | Leave a comment

কসমের কাফফারার তিনটি ছিয়াম ধারাবাহিকভাবে রাখা আবশ্যক কি?


কসমের কাফফারার তিনটি ছিয়াম ধারাবাহিকভাবে রাখা আবশ্যক নয়। বরং যেকোন দিন আলাদাভাবে রাখা যাবে। তবে যেকোন ওয়াজিব ছিয়াম ধারাবাহিকভাবে রাখা উত্তম (নববী, আল-মাজমূ‘ ১৮/১২২; ইবনু কুদামাহ, মুগনী ৯/৫৫৫; ফাতাওয়া লাজনা দায়েমা ২২/২৩)।

Posted in কসমের কাফফারার তিনটি ছিয়াম ধারাবাহিকভাবে রাখা আবশ্যক কি? | Tagged , | Leave a comment

আমি কুরআন মাথায় নিয়ে একটি বিষয়ে ওয়াদা করেছিলাম। কিন্তু তা ভঙ্গ হয়ে গেছে। এক্ষণে আমার করণীয় কি?


প্রশ্ন অনুযায়ী ওয়াদাকারী আল্লাহর নামে ওয়াদা করেছেন, যা কসমের শামিল। অতএব এক্ষেত্রে কসম ভঙ্গের কাফফারা দিতে হবে। আর কসম ভঙ্গের কাফফারা হ’ল দশজন মিসকীনকে মধ্যম মানের খাদ্য খাওয়ানো অথবা বস্ত্র দান করা অথবা একটি দাস মুক্ত করা। এতে অসমর্থ হ’লে … Continue reading

Posted in কুরআন নিয়ে কসম করে ভঙ্গ করলে করণীয় কি? | Tagged , | Leave a comment

জনৈক পিতা তার পুত্রকে বলেন,আল্লাহর কসম আমি তোকে ত্যাজ্য পুত্র করলাম। এক্ষণে এরূপ কসম করা শরী‘আতসম্মত কি? উক্ত কসমের কাফফারা দিতে হবে কি?


ইসলামে সন্তানকে ত্যাজ্য করার কোন বিধান নেই। এরূপ করলে পিতা-মাতা আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নকারী কবীরা গোনাহগার হিসাবে গণ্য হবেন। রাসূল (ছাঃ) বলেছেন, ‘আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নকারী ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করবে না’ (বুখারী হা/৫৯৮৪; মুসলিম হা/ ২৫৫৬; মিশকাত হা/৪৯২২)। পক্ষান্তরে সন্তান পিতা-মাতার অবাধ্য হ’লে … Continue reading

Posted in কসম ভঙ্গের কাফফারা, কসম সন্তানের মাথায় হাত রেখে করা যাবে কি?, কসমের জন্য কাফফারা দিতে হবে কি? | Tagged | Leave a comment