Tag Archives: কুরআন

কুরআন খতমের বিশেষ কোন দো‘আ পাঠ বা দলবদ্ধ মুনাজাতের নিয়ম আছে কি? কুরআনের মুছহাফে যে সকল দো‘আ লেখা থাকে, সেগুলোর কোন ভিত্তি আছে কি?


রাসূল (ছাঃ) বা ছাহাবায়ে কেরাম থেকে কুরআন খতম শেষে বিশেষ কোন দো‘আ পাঠ করা বা দলবদ্ধভাবে মুনাজাত করার বিশুদ্ধ দলীল পাওয়া যায় না। কেবল আনাস (রাঃ) থেকে একটি আছার পাওয়া যায় যে, তিনি যখন কুরআন খতম করতেন, তখন তাঁর সন্তানাদি … Continue reading

Posted in কুরআন খতমের বিশেষ কোন দো‘আ পাঠ বা দলবদ্ধ মুনাজাতের নিয়ম আছে কি? | Tagged

কুরআন তেলাওয়াত শেষে ‘ছাদাক্বাল্লাহুল আযীম’ বলা ঠিক হবে কি?


কুরআন তেলাওয়াত শেষে ‘ছাদাক্বাল্লাহুল আযীম’ বলার কোন দলীল পাওয়া যায় না। রাসূল (ছাঃ), ছাহাবায়ে কেরাম এমনকি তাবেঈগণের আমল থেকেও এর বর্ণনা পাওয়া যায় না। সেজন্য অনেক বিদ্বান একে বিদ‘আত বলেছেন (বিন বায, মাজমূ‘ ফাতাওয়া ৭/৩৩০-৩১; উছায়মীন, ইযালাতুস সাত্তার আনিল জাওয়াবিল মুখতার … Continue reading

Posted in কুরআন তেলাওয়াত শেষে ‘ছাদাক্বাল্লাহুল আযীম’ বলা ঠিক হবে কি? | Tagged ,

বিদ্যালয়ে পাঠদান শুরুর আগে যে এসেম্বলী বা সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়, সেখানে পবিত্র কুরআন হ’তে তেলাওয়াত করার সময় হাত বেঁধে রাখা যাবে কি?


কুরআন তেলাওয়াতের সময় হাত বাঁধার কোন পদ্ধতি ইসলামী শরী‘আতে নেই। বরং কুরআনকে সর্বাধিক সম্মান প্রদর্শন করে স্বাভাবিকভাবে তেলাওয়াত করবে।

Posted in কুরআন তেলাওয়াত করার সময় হাত বেঁধে রাখা যাবে কি? | Tagged

রোগ আরোগ্য এবং পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উদ্দেশ্যে কুরআন তেলাওয়াত করা যাবে কি?


কুরআন তেলাওয়াত আমলে ছালেহ-এর অন্তর্ভুক্ত। আর নেক আমলকে অসীলা করে আল্লাহর নিকট দো‘আ করা জায়েয। রাসূল (ছাঃ) বলেন, যে ব্যক্তি কুরআন তেলাওয়াত করে, সে যেন এর বিনিময়ে আল্লাহর নিকট কিছু প্রার্থনা করে। কেননা শীঘ্র এমন লোকদের আগমন ঘটবে যারা কুরআন … Continue reading

Posted in পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করার উদ্দেশ্যে কুরআন তেলাওয়াত করা যাবে কি? | Tagged

কুরআন ছুঁয়ে কসম করা শিরক বলে গণ্য হবে কি?


আল্লাহর নাম বা গুণাবলী ছাড়া অন্য কারু নামে কসম করা শিরক। রাসূল (ছাঃ) বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহ ছাড়া অন্যের নামে কসম করল, সে কুফরী করল অথবা শিরক করল’ (তিরমিযী হা/১৫৩৫;  মিশকাত হা/৩৪১৯; ছহীহাহ হা/২০৪২)। তিনি আরও বলেন, ‘যে কসম খেতে চায়, … Continue reading

Posted in কুরআন ছুঁয়ে কসম করা শিরক বলে গণ্য হবে কি? | Tagged ,

ক্বিয়ামতের দিন মসজিদ, মাদরাসা, কা‘বাঘর ও কুরআন মাজীদ ইত্যাদি অক্ষত থাকবে। এমর্মে বর্ণিত হাদীছের কোন সত্যতা আছে কি?


এ মর্মে কোন দলীল পাওয়া যায় না। বরং ক্বিয়ামতের দিন আল্লাহ ব্যতীত সকল সৃষ্টজীব ধ্বংস হয়ে যাবে। যেমন আল্লাহ বলেন, ভূপৃষ্ঠে যা কিছু আছে, সবই ধ্বংসশীল। কেবল অবশিষ্ট থাকবে তোমার প্রতিপালকের চেহারা (রহমান ৫৫/২৬-২৭)। এছাড়া ক্বিয়ামতের পূর্বে কা‘বা ধ্বংস হয়ে যাবে … Continue reading

Posted in ক্বিয়ামতের দিন মসজিদ মাদরাসা কা‘বাঘর অক্ষত থাকবে কি? | Tagged , ,

কুরআন মজীদ হাত থেকে পড়ে গেলে কুরআনের ওযনে ফকীর-মিসকীনকে চাউল দিতে হবে। একথার সত্যতা আছে কি?


এ কথার কোন ভিত্তি নেই। তবে কুরআন সর্বাধিক মর্যাদাসম্পন্ন পবিত্র গ্রন্থ (বুরূজ ২২)। অনিচ্ছাকৃতভাবে কুরআন পড়ে গেলে কিংবা পা লাগলে ভীতি ও শ্রদ্ধার সাথে তওবার মন নিয়ে ‘ইন্নালিল্লা-হি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজে‘উন’ পাঠ করবে (বাক্বারাহ ২/১৫৬; উম্মে সালামাহ (রাঃ) হ’তে বর্ণিত হাদীছ, … Continue reading

Posted in কুরআন পড়ে গেলে কুরআনের ওযনে চাউল দান করেতে হবে কি? | Tagged ,

লাশের সামনে কুরআন তেলাওয়াত করা যাবে কি? এতে লাশের কষ্ট দূর হয় বলে কথিত আছে। এর সত্যতা জানতে চাই।


মৃত ব্যক্তির সামনে কুরআন তেলাওয়াত করা যাবে না। রাসূল (ছাঃ) ও ছাহাবায়ে কেরাম থেকে এরূপ কোন আমলের প্রমাণ পাওয়া যায় না। ইবনু তায়মিয়াহ (রহঃ) বলেন, মৃত্যুর পর লাশের নিকট কুরআন তেলাওয়াত করা বিদ‘আত (আল-ইখতিয়ারাত ১/৪৪৭, ৯১)। ইবনুল ক্বাইয়িম (রহঃ) বলেন, ‘মৃত … Continue reading

Posted in লাশের সামনে কুরআন তেলাওয়াত করা যাবে কি?, লাশের সামনে কুরআন তেলাওয়াত লাশের কষ্ট দূর হয় কি? | Tagged , ,

মোবাইলে কুরআন থাকা অবস্থায় টয়লেটে প্রবেশ করা যাবে কি?


যাবে। কারণ তা স্পর্শযোগ্য নয়। এটি হাফেযদের হৃদয়ে কুরআন থাকার ন্যায়। কিন্তু তাদের জন্য টয়লেটে যাওয়া নিষিদ্ধ নয়। তাছাড়া কুরআনের কোন আয়াত যদি মোবাইলের উপরে লেখা থাকে তাহ’লে পকেটের ভিতরে রাখতে হবে (উছায়মীন, মাজমূ‘ ফাতাওয়া ১১/১০৯)। পায়খানারত অবস্থায় যেমন কুরআন পাঠ … Continue reading

Posted in মোবাইলে কুরআন থাকা অবস্থায় টয়লেটে প্রবেশ করা যাবে কি? | Tagged

আমি কুরআন তেলাওয়াত করতে পারি না। এক্ষণে অনুবাদ পাঠ করলে তেলাওয়াতের নেকী পাওয়া যাবে কি?


অনুবাদ পড়ে তেলাওয়াতের নেকী পাওয়ার পক্ষে কোন দলীল নেই। কুরআন আরবীতেই পড়তে হবে, যাতে প্রতি হরফের বিনিময়ে ১০টি নেকী পাওয়া যাবে (হাকেম হা/২০৮০; ছহীহাহ হা/৬৬০)। তবে কেউ কুরআন বুঝার জন্য অনুবাদ পাঠ করলে ছওয়াব পাবে (নিসা ৪/৮২; মুহাম্মাদ ৪৭/২৪)। কারণ এটি একটি … Continue reading

Posted in কুরআনের অনুবাদ পাঠ করলে তেলাওয়াতের নেকী পাওয়া যাবে কি? | Tagged

বিভিন্ন সাংকেতিক চিহ্ন অনুযায়ী কুরআন শেখা এবং সে চিহ্ন অনুযায়ী কুরআন পড়া জায়েয হবে কি?


কুরআনকে শুদ্ধভাবে তেলাওয়াতের জন্য যেকোন বৈধ পন্থা অবলম্বন করা যেতে পারে। যেমন কুরআনকে সহজে তেলাওয়াতের জন্য ছাহাবী ও তাবেঈদের যুগে নোকতা ও হরকত সংযোজন করা হয় (যাহাবী, তারীখুল ইসলাম ৬/৫০৩; যুরক্বানী, মানাহিলুল ইরফান ১/৪০৬-৪০৭)। কিন্তু বর্তমানে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে কুরআন শিখানোর নামে … Continue reading

Posted in কুরআন বিভিন্ন সাংকেতিক চিহ্ন অনুযায়ী পড়া জায়েয হবে কি? | Tagged

ছহীহ হাদীছ কুরআনের বিরোধী হ’লে তা গ্রহণযোগ্য হবে কি?


ছহীহ হাদীছ কখনো কুরআন বিরোধী হবে না। যদি কখনো পরস্পর বিরোধী মনে হয়ে থাকে, তবে সেটি আমাদের জ্ঞানের সীমাবদ্ধতার ফল। কেননা শরী‘আত প্রণেতার কোন বিধানে স্ববিরোধিতা নেই। আর রাসূল (ছাঃ) যা বলতেন তা অহী (নাজম ৫৩/৩-৪)। এক্ষণে কোন হাদীছ বাহ্যত যদি … Continue reading

Posted in ছহীহ হাদীছ কুরআনের বিরোধী হ’লে তা গ্রহণযোগ্য হবে কি? | Tagged ,

আমাদের মক্তবে বহুদিনের পুরাতন ছেড়া-ফাটা কিছু কুরআনের কপি রয়েছে, যা পড়ার উপযোগী নয়। এগুলি কি করা উচিৎ?


কুরআন ও হাদীছের ছেঁড়া পাতা ও বই-পুস্তক পুড়িয়ে  ফেলতে হবে। কুরআন ও হাদীছ অতীব পবিত্র ও সম্মানের বস্ত্ত। এগুলির ছিন্ন পাতা বা কিতাব কোনভাবে যাতে অসম্মানিত না হয়, সেদিকে খেয়াল রেখেই সম্ভবতঃ ছাহাবায়ে কেরাম এগুলি পুড়িয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। মূল … Continue reading

Posted in কুরআনের পুরাতন ছেড়া-ফাটা পড়ার অনুপযোগী কপি কি করা উচিৎ? | Tagged

আমি কুরআন মাথায় নিয়ে একটি বিষয়ে ওয়াদা করেছিলাম। কিন্তু তা ভঙ্গ হয়ে গেছে। এক্ষণে আমার করণীয় কি?


প্রশ্ন অনুযায়ী ওয়াদাকারী আল্লাহর নামে ওয়াদা করেছেন, যা কসমের শামিল। অতএব এক্ষেত্রে কসম ভঙ্গের কাফফারা দিতে হবে। আর কসম ভঙ্গের কাফফারা হ’ল দশজন মিসকীনকে মধ্যম মানের খাদ্য খাওয়ানো অথবা বস্ত্র দান করা অথবা একটি দাস মুক্ত করা। এতে অসমর্থ হ’লে … Continue reading

Posted in কুরআন নিয়ে কসম করে ভঙ্গ করলে করণীয় কি? | Tagged ,

রেহাল না থাকায় মসজিদের মেঝেতে কুরআন রেখে তেলাওয়াত করা যাবে কি?


না। বরং কুরআনকে সসম্মানে উঁচু স্থানে রেখে তেলাওয়াত করতে হবে। আব্দুল্লাহ ইবনু ওমর (রাঃ) বলেন, একবার ইহূদীদের একটি দল রাসূল (ছাঃ)-এর নিকটে যেনার ফয়ছালা গ্রহণের জন্য আসলে রাসূল (ছাঃ) তাদেরকে তওরাতের একটি কপি আনতে বলেন। এসময় তারা রাসূল (ছাঃ)-এর বসার … Continue reading

Posted in কুরআন মসজিদের মেঝেতে রেখে তেলাওয়াত করা যাবে কি? | Tagged

কুরআন মাজীদ মুখস্থ পড়ায় এক হাযার এবং দেখে পড়ায় দুই হাযার নেকী হয়। এর সত্যতা আছে কি?


এ মর্মে বর্ণিত হাদীছটি যঈফ (বায়হাক্বী, মিশকাত হা/২১৬৭; যঈফুল জামে‘ হা/৪০৮১)। এছাড়া কুরআন দেখে পড়া বা মুখস্থ পড়ার মধ্যে ছওয়াবের পার্থক্যের  বিষয়ে কোন ছহীহ দলীল পাওয়া যায় না। এবিষয়ে যত হাদীছ আছে সবগুলিই যঈফ ও জাল (সিলসিলা যঈফাহ হা/৩৫৬, ৪০১১)। মূলতঃ কুরআন অনুধাবন … Continue reading

Posted in কুরআন মাজীদ মুখস্থ পড়ায় এক হাযার এবং দেখে পড়ায় দুই হাযার নেকী হয় কি? | Tagged

কুরআন তেলাওয়াত শেষে ‘ছাদাক্বাল্লাহুল আযীম’ বলার ব্যাপারে শরী‘আতের বিধান কি?


কুরআন পাঠের পর উক্ত দো‘আ পড়ার কোন বিধান নেই। রাসূল (ছাঃ) তাঁর ছাহাবীগণ, তাবেঈগণ বা সালফে ছালেহীন কখনো উক্ত দো‘আ পাঠ করেন নি। তাই এই দো‘আ পরিত্যাজ্য (ফাতাওয়া লাজনা দায়েমা ৪/১৪৯-১৫০, ফৎওয়া নং ৩৩০৩)। বরং কুরআন তেলাওয়াত শেষে বলতে হবে- ‘সুবহা-নাকা আল্লা-হুম্মা … Continue reading

Posted in কুরআন তেলাওয়াত শেষে ‘ছাদাক্বাল্লাহুল আযীম’ বলা যাবে কি? | Tagged

আমি কিছু নারীকে কুরআন পড়াই। আমাদের নিজস্ব কোন ফান্ড না থাকায় তাদের নিকট থেকে সাধ্যনুযায়ী কিছু টাকা জমা করি এবং তাদের মাঝে বিভিন্ন সময়ে প্রতিযোগিতা করে উক্ত অর্থ দিয়ে তার পুরস্কার ক্রয় করে তাদেরকে দেই। এভাবে টাকা নিয়ে পুরস্কার দেওয়া জুয়ার অন্তর্ভুক্ত হবে?


এটি জুয়ার অন্তর্ভুক্ত হবে না। তাছাড়া কুরআন শিক্ষার বিনিময় গ্রহণ করায় কোন দোষ নেই। রাসূল (ছাঃ) বলেছেন, যে বস্ত্তর উপর তোমরা পারিশ্রমিক গ্রহণ কর, সেগুলির মধ্যে সর্বাপেক্ষা বেশী হকদার হ’ল আল্লাহর কিতাব (বুখারী, মিশকাত হা/২৯৮৫; শাওকানী, নায়লুল আওত্বার ৫/৩৪৬)। 

Posted in কুরআন প্রতিযোগিতাই চাঁদা উঠিয়ে তাদেরকেই পুরুস্কার দেওয়া যাবে কি? | Tagged , ,

কুরআন-হাদীছ বা অন্যান্য ধর্মীয় গ্রন্থাবলীর উপরে কিছু রাখা বা একটি অপরটির উপর রাখায় শরী‘আতে কোন বাধা আছে কি?


কুরআনের উপর কুরআন ব্যতীত অন্য কোন বই রাখা যাবে না। কারণ পবিত্র কুরআন মহান আল্লাহর বাণী, যা পৃথিবীর সমস্ত গ্রন্থের চেয়ে মর্যাদামন্ডিত। আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই এটা সম্মানিত কুরআন, যা আছে এক গোপন কিতাবে, যারা পবিত্র তারা ব্যতীত অন্য কেউ একে … Continue reading

Posted in কুরআন-হাদীছ বা অন্যান্য ধর্মীয় গ্রন্থাবলীর উপরে কিছু রাখা যাবে কি? | Tagged