Tag Archives: নেশাকারী

আমার আপন ভাই নানা প্রকার সূদী ঋণ নিয়ে বেশুমার খরচ করে এখন ঋণগ্রস্ত। একই সাথে তার নেশাখোর সন্তান নানাভাবে বহু অর্থ নষ্ট করে চলেছে। এক্ষণে তার ঋণমুক্তির জন্য আমরা ভাই-বোনেরা যাকাতের টাকা প্রদান করলে তা জায়েয হবে কি? উল্লেখ্য যে, বিষয়টি স্বভাবগত হওয়ায় হয়তবা সে আবারো ঋণগ্রস্ত হবে। এমতাবস্থায় করণীয় কি?


যাকাতের অর্থ থেকে ঋণগ্রস্ত ভাইকে দেওয়া যাবে (তাওবাহ ৯/৬০)। বরং আত্মীয়কে দিলে দ্বিগুণ ছওয়াব হবে রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, ‘মিসকীনকে ছাদাক্বা দিলে একটি নেকী হয়। কিন্তু সে যদি রক্ত সম্পর্কীয় নিকটাত্মীয় হয়, তবে নেকী দ্বিগুণ হয়। এক- ছাদাক্বা এবং দুই-আত্মীয়তা (আহমাদ, তিরমিযী প্রভৃতি, … Continue reading

Posted in যাকাতের টাকা নেশাখোর ভাইকে প্রদান করা জায়েয হবে কি? | Tagged , ,

জনৈক ব্যক্তি বলেন, ছিয়ামরত অবস্থায় দিনের বেলা সিগারেট খাওয়া যাবে। কারণ এটি শরীরে কোন পুষ্টি যোগায় না। বরং ক্ষতি করে। সুতরাং এটি ছিয়ামভঙ্গকারী খাবার নয়। একথার সত্যতা আছে কি?


বক্তব্যটি ভিত্তিহীন। কারণ সিগারেট খাওয়া হয় ইচ্ছাকৃতভাবে। হানাফী বিদ্বান ইবনু আবেদীন বলেন, যেকোন প্রকারের ধোঁয়া ইচ্ছাকৃতভাবে গ্রহণ করলে ছওম ভঙ্গ হয়ে যাবে (রাদ্দুল মুহতার আলাদ দুররিল মুখতার ২/৩৯৫)। বিশেষজ্ঞদের মতে, সিগারেটের ধোঁয়া চলে যায় ফুসফুসে, আর কিছু উপাদান চলে যায় পাকস্থলীতে। … Continue reading

Posted in ছিয়ামরত অবস্থায় দিনের বেলা সিগারেট খাওয়া যাবে কি? | Tagged , ,

বেনামাযী ও নেশাকারী ব্যক্তিদের সাথে ক্রয়-বিক্রয়, চলাফেরাসহ সামাজিক সম্পর্ক রাখা যাবে কি?


এধরনের লোকদের একান্ত প্রয়োজন ব্যতীত এড়িয়ে চলতে হবে। রাসূল (ছাঃ) বলেন, ‘তুমি মুমিন ব্যতীত কাউকে বন্ধু হিসাবে গ্রহণ করবে না এবং তোমার খাদ্য যেন কেবল মুত্তাকীরা খায়’ (আবুদাঊদ হা/৪৮৩২; মিশকাত হা/৫০১৮)। তিনি আরো বলেন, ‘মানুষ তার বন্ধুর রীতির উপর হয়ে থাকে। … Continue reading

Posted in বেনামাযী ও নেশাকারী ব্যক্তিদের সাথে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে কি? | Tagged ,