Tag Archives: হায়েয / নিফাস / মাসিক

রাত ১১ ঘটিকায় আমার সন্তান জন্মলাভ করেছে। এক্ষণে আমি নিফাসের গণনা কখন থেকে শুরু করব। আগের দিন না পরের দিন থেকে?


ইসলামী বিধানে সূর্যাস্তের পর থেকে দিবস গণনা শুরু হয়। অতএব যে সময় সন্তান জন্মগ্রহণ করেছে সেখান থেকে চল্লিশতম দিনের উক্ত সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করবে। এর পরেও নিফাস চলতে থাকলে ইস্তেহাযা মনে করে পবিত্র হয়ে ছালাত আদায় করবে (আল-মাওসূ‘আতুল ফিক্বহিইয়াহ ৪১/৮)। উম্মে … Continue reading

Posted in নিফাসের গণনা কখন থেকে শুরু করতে হয়? | Tagged

হায়েয অবস্থায় সহবাস করলে তার কাফফারা কি? যদি কাফফারা আদায় করতে না পারে তাহ’লে কি করতে হবে?


হায়েয অবস্থায় স্ত্রী সহবাস হারাম (বাক্বারা ২/২২২)। ইচ্ছাকৃতভাবে যদি কেউ করে, তবে তাকে খালেছ নিয়তে তওবা করতে হবে এবং কাফফারা স্বরূপ এক দীনার বা অর্ধ দীনার গরীব-মিসকীনকে দান করতে হবে (তিরমিযী, আবুদাঊদ হা/২৬৪; ইরওয়া হা/১৯৭; মিশকাত হা/৫৫৩)। আর এক দীনার হ’ল ৪.২৫ … Continue reading

Posted in হায়েয অবস্থায় সহবাস করলে তার কাফফারা কি? | Tagged , ,

প্রয়োজন বোধে ঔষধ খেয়ে মাসিক বন্ধ রাখা জায়েয হবে কি?


দৈহিক কোন ক্ষতি না হ’লে এরূপ করা বৈধ। তবে যদি নারী কোনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তবে তা করা উচিৎ নয়। অবশ্য ঋতুবতী স্ত্রীকে মিলন ছাড়া অন্য সকল পন্থায় সম্ভোগ করা যাবে (মুসলিম হা/৩০২; ইবনু মাজাহ হা/৬৪৪)।

Posted in মাসিক প্রয়োজন বোধে ঔষধ খেয়ে বন্ধ রাখা জায়েয হবে কি? | Tagged

হায়েয অবস্থায় মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেয়া বা স্পর্শ করা যাবে কি?


হায়েযা নারী বা জুনুবী ব্যক্তি লাশকে গোসল করাতে পারে। কারণ তারা মৌলিকভাবে পবিত্র (ইবনু হাজার হায়তামী, তুহফাতুল মুহতাজ ৩/১৮৪; ফাতাওয়া লাজনা দায়েমাহ ৮/৩৬৯)। যেমন হজ্জের সময় নাপাক হ’লে রাসূল (ছাঃ) স্ত্রী আয়েশাকে বলেন তুমি তাওয়াফ ও ছালাত ব্যতীত সবই করতে পার (বুখারী … Continue reading

Posted in হায়েয অবস্থায় মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেয়া বা স্পর্শ করা যাবে কি? | Tagged , ,

আমার ৫০ দিনের ভ্রূণ নষ্ট হয়ে যাওয়ার পর ১৫ দিন যাবত রক্তপাত হচ্ছে। এক্ষণে উক্ত রক্ত নিফাসের রক্ত হিসাবে গণ্য হবে কি?


উক্ত রক্ত নিফাস হিসাবে গণ্য হবে না। বরং মুস্তাহাযা হিসাবে গণ্য হবে। কারণ সাধারণত বাচ্চার বয়স কমপক্ষে ৮০ দিন না হ’লে দৈহিক আকৃতি ফুটে ওঠে না। সুতরাং এর পূর্বে গর্ভপাত ঘটলে তার রক্ত নিফাস হিসাবে গণ্য হবে না। এ অবস্থায় … Continue reading

Posted in ভ্রূণ নষ্ট হয়ে যাওয়ার রক্তপাত নিফাসের রক্ত হিসাবে গণ্য হবে কি? | Tagged

নারীদের ফোঁটা ফোঁটা রক্ত বের হ’লে তা কি হায়েয হিসাবে গণ্য হবে এবং এ অবস্থায় ছিয়াম পালন করা যাবে কি?


এটি হায়েয হিসাবে গণ্য হবে না। বরং প্রদর রোগ। অতএব ছিয়াম পালনে কোন বাধা নেই। ‘হায়েয’ বলা হয় প্রবহমান রক্তকে, যা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অবিরতভাবে নির্গত হয়। কিন্তু প্রশ্নে বর্ণিত বিষয়টি তা নয়। উছায়মীন বলেন, এ অবস্থায় তার ছিয়াম সঠিক। … Continue reading

Posted in নারীদের ফোঁটা ফোঁটা রক্ত বের হ’লে তা কি হায়েয হিসাবে গণ্য হবে? | Tagged ,